ফিলিস্তিনে হত্যাযজ্ঞের নীরব দর্শকরা কথা বলার অধিকার হারিয়েছে

ফিলিস্তিনে হত্যাযজ্ঞের নীরব দর্শকরা কথা বলার অধিকার হারিয়েছে

আগের সংবাদ
এলডিপি'র সিনিয়র সহ-সভাপতি সৈয়দ ইব্রাহিম রনক

এলডিপি'র সিনিয়র সহ-সভাপতি সৈয়দ ইব্রাহিম রনক

পরের সংবাদ

সিঙ্গাপুরকে গোল বন্যায় ভাসাল সাবিনারা

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৪, ২০২৩ , ৫:৩৮ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৪, ২০২৩ , ৫:৩৮ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে ৮-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে জয়ী পেয়েছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। এ নিয়ে টানা দুই ম্যাচে জয় পেল বাংলাদেশের মেয়েরা। সোমবার (৪ ডিসেম্বর) কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহি মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে ১ ডিসেম্বর প্রথম ম্যাচে ৩-০ গোলে হারায় সফরকারীদের। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ২টি করে গোল করেন তহুরা খাতুন এবং ঋতুপর্ণা চাকমা। এছাড়া একটি করে গোল করেন সানজিদা আক্তার, সাবিনা খাতুন, সুমাইয়া এবং শামসুন্নাহার।

ফিফা নারী ফুটবল র‌্যাঙ্কিয়ে বাংলাদেশের খানিকটা এগিয়ে সিঙ্গাপুর নারী দল। র‌্যাঙ্কিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪২ তম এবং বাংলাদেশ দলের অবস্থান ১৩০ তম। কিন্তু আজ যেভাবে সিঙ্গাপুরের ডিফেন্ডারদের নাকানিচুবানি খাইয়েছে তাতে মনে হয়েছে সফরকারীরা বাংলাদেশের চেয়ে আরো নিচের সারির দল।

একই স্টেডিয়ামে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের পর আজ দ্বিতীয় ম্যাচেও জ্বলে উঠলেন বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের তহুরা খাতুন। প্রথম ম্যাচে জোড়া গোল করে বাংলাদেশের জয়ের নেপথ্যে ছিলেন তিনি। দ্বিতীয় ম্যাচের প্রথমার্ধেই জোড়া গোল করেছেন এই ফরোয়ার্ড। তার পাশাপাশি ঋতুপর্ণা চাকমার গোল নিয়ে প্রথমার্ধ ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে শেষ করেছে বাংলাদেশ।

অন্যদিকে, আজকের দ্বিতীয় ও শেষ ফিফা প্রীতি ম্যাচেও সফরকারীরা চারটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে। তাদের হয়ে খেলছেন বরুশিয়া ডর্টমুন্ডে খেলা ডেনেল্লে তান লি।

কিন্তু তাতেও কাজের কাজ কিছু হয়নি। শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক চেহারায় বাংলাদেশ। তাতে সুযোগ মিলল বার কয়েক। কিন্তু কাজে লাগাতে পারছিল না সাইফুল বারীর শিষ্যরা। সিঙ্গাপুরের ওপর চাপ ধরে রাখায় দ্রুতই মিলল গোল। খেলার মাত্র ১৬ মিনিটে সাবিনার ফ্রি কিক বক্সের মধ্যে আফিদার ভলিতে মাসুরা পারভীন হেড করেন। তহুরা আরেক হেডে বল জালে পাঠান। এক মিনিট পরেই অধিনায়ক সাবিনার নেয়া কর্নার সিঙ্গাপুরের ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে বল পোস্টের সামনে পড়ে। ফাঁকা দাঁড়িয়ে থাকা ঋতুপর্ণা চাকমা প্লেসিংয়ে ২-০ করেন। ২৪ মিনিটে বক্সের মধ্য থেকে সানজিদার শট সিঙ্গাপুরের গোলরক্ষক গ্রিপে নিতে পারেননি। সামনে থাকা তহুরা বল জালে পাঠান।

পরে ম্যাচের বাকি সময় বাংলাদেশ বল পায়ে আক্রমণ অব্যাহত রাখলেও ব্যবধান আর বাড়েনি। শেষ পর্যন্ত ৩-০ গোলে এগিয়ে থেকে ড্রেসিংরুমে যেতে হয়েছে সাইফুল বারী টিটুর দলকে। দিতীয়ার্ধে আরো আক্রমণাত্মক খেলা শুরু করে বাংলাদেশের মেয়েরা। ৫৭ মিনিটে সানজিদা আক্তারের গোলে ব্যবধান ৪-০ করেন সানজিদা আক্তার। তার পাঁচ মিনিট পরই নিজের দ্বিতীয় গোল করেন ঋতুপর্ণা চাকমা। ৭৫ মিনিটে সাবিনা খাতুনের গোলে ব্যবধান ৬-০ হয় লাল সবুজ জার্সি-ধারীদের। ৭৪ মিনিটে সানজিদার বদলি হিসেবে নামা মাতসুশিমা সুমাইয়া ৮৮ মিনিটে ডি বক্সের ভেতর থেকে নিচু হয়ে দুর্দান্ত এক শটে দলের স্কোরলাইন ৭-০ করেন।

ম্যাচ শেষে অতিরিক্ত ৫ মিনিটের প্রথম মিনিটেই শামসুন্নাহারের গোলে ৮-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে জয় পায় বাংলাদেশের মেয়েরা।

এসি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়