নভেম্বরে রেমিট্যান্স এলো ১৯৩ কোটি ডলার

আগের সংবাদ
বিএনপি সরকার উৎখাতের আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছে

বিএনপি সরকার উৎখাতের আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছে

পরের সংবাদ

মানবসম্পদ উন্নয়নে ‘সিমুলেশন ল্যাব’ চালু করলো উদ্দীপন

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩, ২০২৩ , ৭:৩৫ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০২৩ , ৭:৩৫ অপরাহ্ণ
সিমুলেশন ল্যাব

যুক্তরাজ্য, ইউরোপ এবং কমনওয়েলথ বাজারের চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ কর্মী উন্নয়নে সম্প্রতি ঢাকায় একটি বিশেষায়িত সিমুলেশন ল্যাব চালু করেছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ইউনাইটেড ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ ফর প্রোগ্রামড অ্যাকশনস (উদ্দীপন)।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে রাজধানীর মহাখালীর এসকেএস টাওয়ারে উদ্দীপন সিমুলেশন ও হাইটেক ল্যাব উদ্বোধন করেন ব্রিটিশ এমপি ও শ্যাডো মন্ত্রী স্যাম ট্যারি। এসময় উদ্দীপনের চেয়ারম্যান মোঃ নজরুল ইসলাম খান এবং উদ্দীপন বোর্ডের সদস্য ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা নাজির আলম সহ সংগঠনের অন্যান্য বোর্ড ও ব্যবস্থাপনা টিমের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন ।

সিমুলেশন ও হাইটেক ল্যাব সম্পর্কে আশাবাদী উদ্দীপন চেয়ারম্যান মোঃ নজরুল ইসলাম খান বলেন, এই সুবিধাটি যুক্তরাজ্যের বাজারের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশি শ্রমিকদের দক্ষতার ঘাটতি পূরণ করবে। উদ্দীপনের নতুন প্রশিক্ষণ ল্যাবটি ইউরোপের বহু দেশের প্রয়োজন অনুযায়ী দক্ষ কর্মী উন্নয়নে ‘সেতুবন্ধন’ হিসেবে কাজ করবে বলে মনে করেন বোর্ডের সদস্য এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা নাজির আলম।

তিনি আরো বলেন, মানবসম্পদ উন্নয়নে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (ভিআর), অগমেন্টেড রিয়েলিটি (এআর), সিমুলেটেড রিয়েলি(এসআর) ব্যবহারে আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। যেটি দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও সনদ অনুযায়ীই প্রশিক্ষণ এর পাশাপাশি ও হসপিটলিটি এবং নির্মাণ খাতে দক্ষ কর্মী চাহিদা পূরণ করবে।

ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) এবং অন্যান্য দেশগুলিতে বাংলাদেশী নার্স ও কেয়ারগিভারদের বিপুল চাহিদা রয়েছে। ব্রেক্সিট-পরবর্তী চাহিদা মেটাতে হসপিটলিটি এবং নির্মাণ খাতে আরও দক্ষ কর্মীর প্রয়োজন বলে ধারনা উদ্দীপন কর্তৃপক্ষের।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ব্রিটিশ এমপি স্যাম টেরি বলেন , উদ্দীপনের সর্বাধুনিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্বোধন করা আমার জন্য অনেক সম্মানের এবং এটি ব্রেক্সিট পরবর্তী সময়ে এনএইচএস এবং অন্যান্য মানদণ্ড অনুযায়ী কর্মীচাহিদা মেটাতে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করি।

স্যাম টেরি মনে করেন, সময়ের সাথে সাথে বাংলাদেশের দক্ষ কর্মীদের চাহিদা বাড়ছে বিশ্ববাজারে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের মত একটি দেশের সাথে যৌথভাবে কাজ করা আমার জন্য আনন্দের যার সাথে আমাদের ইতিহাস, ভাষা এবং সংস্কৃতির বিনিময় রয়েছে। যুক্তরাজ্যের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে উদ্দীপনের এই কর্মসূচি সবার জন্য নতুন সুযোগ তৈরি করবে বলে বিশ্বাস করেন স্যাম টেরি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়