মালদ্বীপ থেকে সেনা প্রত্যাহার করবে ভারত

মালদ্বীপ থেকে সেনা প্রত্যাহার করবে ভারত

আগের সংবাদ

ফারুকী-তিশাকে ছাপিয়ে আলোচনায় ডিপজল

পরের সংবাদ

টি-টোয়েন্টিতে প্রোটিয়াদের হারাল টাইগ্রেসরা

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩, ২০২৩ , ১০:২৪ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০২৩ , ১০:২৪ অপরাহ্ণ
টি-টোয়েন্টিতে প্রোটিয়াদের হারাল টাইগ্রেসরা

অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি ও মুর্শিদা খাতুনের দুর্দান্ত ব্যাটিং এবং স্পিনার স্বর্ণা আক্তারের বিধ্বংসী বোলিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে আজ ১৩ রানে জিতেছে বাংলাদেশের মেয়েরা।

এ জয়ের ফলে ৩ ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল টাইগ্রেসরা। আগামী ৬ ও ৮ ডিসেম্বর কিম্বারলিতে বাকি দুই টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। এরপর আগামী ১৬ ডিসেম্বর ইস্ট লন্ডনে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচটি হবে। এরপর বাকি দুটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে যথাক্রমে ২০ ও ২৩ ডিসেম্বর পচেফস্ট্রুমে ও বেনোনিতে।

রবিবার (৩ ডিসেম্বর) দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। নিগার সুলতানা জ্যোতি ও মুর্শিদা খাতুনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে টাইগ্রেসরা প্রথম ইনিংসে ১৪৯ রানের ম্যাচ জয়ের ভিত পেয়ে যায়। বাকি দায়িত্ব ছিল বোলারদের ওপর। সেখানে দুর্দান্ত বল করেছেন ডানহাতি লেগ স্পিনার স্বর্ণা আক্তার। তিনি ২৮ রানে তুলে নেন ৫ উইকেট। টাইগ্রেসদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে প্রোটিয়া মেয়েদের ইনিংস থামে ১৩৬ রানে। ফলে ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকা টি-টোয়েন্টিতে প্রথমবারের মতো টাইগ্রেসদের কাছে ১৩ রানে হেরেছে।

একইসঙ্গে তিন ম্যাচের টি- টোয়েন্টি সিরিজটা জয় দিয়ে শুভসূচনা করেছে বাংলাদেশ। এর আগে ২০১২ সালে মিরপুরে প্রথমবারের মতো প্রোটিয়াদের হারায় তারা। ৭ উইকেটে সেই জয়ের পর আর দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাতে পারেনি বাংলাদেশের মেয়েরা।

সবমিলিয়ে দু’দলের মুখোমুখি দেখায় ১১ টি-টোয়েন্টির ১০টিতেই জয় পেয়েছিল প্রোটিয়ারা। টসে জিতে ব্যাটিং নেয়া বাংলাদেশকে শুরুটা ভালো এনে দেন শামীমা সুলতানা ও মুর্শিদা খাতুন। উদ্বোধনী জুটিতে দুজন তোলেন ৪৪ রান।

১৬ রান করে সোবহানা এলবিডব্লু হয়ে ফিরলে ভাঙে সে জুটি। তাতে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশকে টানেন মুর্শিদা, এবার সঙ্গে পান অধিনায়ক নিগার সুলতানাকে। নিগার করেন ২১ বলে ৩৪ রান। মুর্শিদা ক্যারিয়ারে চতুর্থ অর্ধশতক পূর্ণ করেন ৫১ বলে। নিগারের সঙ্গে তার অবিচ্ছিন্ন জুটিতে ৪২ বলেই আসে ৬৬ রান, বাংলাদেশ পায় নিজেদের ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ সংগ্রহ।

আনিকা বোশ ও টাজমিন ব্রিটসের উদ্বোধনী জুটি দক্ষিণ আফ্রিকাকে আরও ভালো শুরু এনে দেয়, পাওয়ার প্লেতেই ওঠে ৫৪ রান।

স্পিন-নির্ভর বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণ সহজেই ভাঙতে পারেনি সে জুটি, ২ ওভারের পর আর বোলিং করেননি নিজের বলে ফিল্ডিং করতে গিয়ে পায়ে চোট পাওয়া মারুফা আক্তারও। বাংলাদেশকে প্রথম ব্রেকথ্রু এনে দেন রাবেয়া খান, তার বলে লং অনে ক্যাচ তোলেন ৩০ রান করা অধিনায়ক ব্রিটস।

দ্বিতীয় উইকেটটিও আসে পরের ওভারেই, এবার ফাহিমার শিকার আনেরি ডের্কসেন। সে সময় ৭ বলের মধ্যে ৩ রান তুলতে স্বাগতিকেরা হারায় ২ উইকেট। সুনে লুস ও বোশের জুটি অবশ্য দক্ষিণ আফ্রিকাকে আশা দেয় ঠিকই।

তবে ১৮তম ওভারে পুরো ম্যাচের চিত্রটা বদলে যায়। সে ওভারে ৬৭ রান করা বোশের পর শাঙ্গাজিকে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে ‘ফেবারিট’ বানিয়ে দেন স্বর্ণা। ১৯তম ওভারে মার্ক্সের উইকেট নেয়ার সঙ্গে নাহিদা দেন মাত্র ২ রান, ফলে শেষ ওভারে স্বর্ণার আটকানোর জন্য থাকে ২৩ রান। প্রথম ওভারে ডেলমি টাকার চার মারলেও স্বর্ণা ঘুরে দাঁড়ান দারুণভাবে।

তৃতীয় ও চতুর্থ বলে মিকি ডি রিডার ও মাসাবাতা ক্লাসকে ফিরিয়ে ক্যারিয়ারে প্রথম ৫ উইকেট নেন ১৬ বছর বয়সী লেগ স্পিনার। জাহানারা আলম, পান্না ঘোষ ও নাহিদার পর চতুর্থ বাংলাদেশি বোলার হিসেবে মেয়েদের টি-টোয়েন্টিতে ৫ উইকেট নিলেন তিনি। আর তাতেই আসে বাংলাদেশের স্মরণীয় জয়।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়