মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যার মাস্টারমাইন্ড জিয়া

আগের সংবাদ
চাঁদপুর সাহিত্য মঞ্চের আড্ডায় 'পূর্বা' নিয়ে আলোচনা

চাঁদপুর সাহিত্য মঞ্চের আড্ডায় 'পূর্বা' নিয়ে আলোচনা

পরের সংবাদ

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের সমাবেশে নেতারা

অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিলেন জিয়া

প্রকাশিত: নভেম্বর ৭, ২০২৩ , ৯:১৭ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ৭, ২০২৩ , ৯:১৭ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তা ও সৈনিক হত্যা দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে নেতারা অভিযোগ করেন, জিয়াউর রহমান অন্তর থেকে নয়, বাধ্য হয়েই মুক্তিযোদ্ধা হয়েছিলেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু হত্যা, কারাগারে জাতীয় চার নেতা হত্যাসহ ৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তা হত্যাসহ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন।

স্বাধীনতা বিরোধী ও পাকিস্তানী ভাবধারার রাজনীতিতে ফিরিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন দেশকে। আর তার হাতে গড়া রাজনৈতিক দল বিএনপি এখন একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীর দল জামায়াতের সাথে মিলে দেশে সন্ত্রাস, বোমাবাজি ও জ্বালাও-পোড়াও করছে। তবে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা মাঠে থেকে রাজনৈতিকভাবেই এসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মোকাবেলা করবে। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের পৃথক সমাবেশে নেতারা এসব মন্তব্য করেন।

মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) বিকালে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চত্বরে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ইউনুছ, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সভায় বিএনপি-জামায়াত দোসরদের অযৌক্তিক অবরোধ ও হরতালের নামে জনগণের জানমালের নিরাপত্তা এবং রাষ্ট্রীয় সম্পদহানি হলে জনগণকে নিয়ে তা প্রতিরোধ করা হবে বলে আ জ ম নাছির ঘোষণা দিয়ে বলেন, বুধবার থেকে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ ১৯টি পয়েন্টে মহানগর আওয়ামী লীগ অবস্থান নেবে।

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নগরীর দোস্ত বিল্ডিংয়ের দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ সালাম, সহ সভাপতি অধ্যাপক মো মঈনুদ্দিন, এড ফখরুদ্দিন চৌধুরী, মো আবুল কালাম আজাদ, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, আফতাব উদ্দিন চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ পালিত, জসিম উদ্দিন শাহ, উপদেষ্টা এড এম এ নাসের চৌধুরী, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক নাজিম উদ্দিন তালুকদার, কার্যনির্বাহী সদস্য বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার প্রমুখ।

এআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়