প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা সভা

আগের সংবাদ
ঢাকা ইয়োগা অ্যান্ড ওয়েলনেস ফেস্ট অনুষ্ঠিত

ঢাকা ইয়োগা অ্যান্ড ওয়েলনেস ফেস্ট অনুষ্ঠিত

পরের সংবাদ

মানিকগঞ্জে বৃদ্ধি পেয়েছে দুর্গা পূজা

প্রকাশিত: অক্টোবর ১, ২০২৩ , ৩:৫৭ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১, ২০২৩ , ৩:৫৭ অপরাহ্ণ
মানিকগঞ্জে বৃদ্ধি পেয়েছে দুর্গা পূজা

মানিকগঞ্জে গতবছরের তুলনায় ২১টি প্রতিমা বৃদ্ধি পেয়ে চলতিবছর ৫৭৪টি মন্দিরে দুর্গা পূজা হতে যাচ্ছে। ২০ অক্টোবর শুরু হয়ে ২৪ অক্টোবর ধর্মীয় উৎসবের সমাপ্তি ঘটবে বলে জানিয়েছে জেলা পূজা উদযাপন কমিটি।

শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) সরেজমিনে জেলার পূজা মণ্ডপগুলো ঘুরে দেখা গেছে, সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে কারিগরদের ব্যস্ততা। আর মাত্র কয়েকদিন পরেই প্রতিমার শরীরে পড়বে শিল্পীদের শেষ তুলির আঁচড় এবং বস্ত্র পরিধাণের মাধ্যমে সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করবেন দেবী দুর্গা।

মৃতশিল্পী অজিত পাল ও সুধীর পাল জানান, আগের মতো মানুষ মাটির তৈরি জিনিসপত্র ব্যবহার না করায় তাদের বছরের বেশিরভাগ সময় বসে কাটাতে হয়। দুর্গা প্রতিমা তৈরির অর্জিত উপার্জন দিয়ে সারাবছর কোনরকমে জীবিকা নির্বাহ করতে হয়। কিন্তু এবছর প্রতিমা তৈরির প্রতিটি উপকরণের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেলেও বৃদ্ধি পায়নি কাজের মজুরি।

ঘিওর উপজেলার ধূলণ্ডী গ্রামের সর্বজনীন দুর্গা মন্দির ও বালিয়াখোড়া ইউনিয়ন পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক এবং বালিয়াখোড়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের সভাপতি তাপস কুমার বসু তুফান বলেন, এবছর দেবী দুর্গা কৈলাস থেকে মর্ত্যলোকে আসবেন ঘোড়ায় চড়ে এবং গমন করবেন নৌকায়। দেবীর আগমনে বিশ্ব হবে শান্তিময়, বিনাশ হবে অশুভ শক্তি।

ধূলণ্ডী সর্বজনীন পূজা কমিটির আয়োজক এবং বালিয়াখোড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দ্বীপজয় সরকার দিপু বলেন, গত বছরের তুলনায় এ বছর জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের বেশ হিমশিম খেতে হচ্ছে। এরপরও থেমে নেই আয়োজন। রকমারি আলোকসজ্জায় সজ্জিত হচ্ছে পূজা মণ্ডপ এবং নিরাপত্তা জোরদারের লক্ষ্যে ব্যবস্থা করা হবে সিসি ক্যামেরা।

মানিকগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক অনির্বাণ পাল জানান, এ বছর জেলা শহরসহ মানিকগঞ্জে মোট ৫৭৪টি মণ্ডপে দুর্গা পূজা উদযাপন করা হবে।

মানিকগঞ্জ পৌরসভায় ৩৪, সদর উপজেলায় ৯৬, ঘিওরে ৮২, দৌলতপুরে ৫৩, শিবালয়ে ৯২, হরিরামপুরে ৬৮, সিংগাইর পৌরসভায় ১৩, সিংগাইরে ৫৭ এবং সাটুরিয়ায় ৭৯টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সাথে জেলা পূজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে এ বিষয়ে মতবিনিময় সভা হয়েছে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য ও মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট অসীম কুমার বিশ্বাস বলেন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী একটি দেশ। বিশেষ করে, মানিকগঞ্জের মানুষ অত্যন্ত শান্তিপ্রিয়। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, দলমত নির্বিশেষে সকলের সার্বিক সহযোগীতায় অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানগুলো সম্পন্ন হয়ে থাকে। এবছরও এ ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী পূজার সময় নিরাপত্তা জোরদার করতে মন্দিরে মন্দিরে টহল দিবেন। জেলা পূজা উদযাপন কমিটি সর্বদা মন্দিরগুলো মনিটরিং করবে।

জেলা পুলিশ সুপার গোলাম আজাদ খান বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের এ ধর্মীয় উৎসবকে ঘিরে নিরাপত্তার জন্য তিনস্তরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করবে। শারদীয় দুর্গোৎসব সুন্দর ও নির্বিঘ্ন করতে তাদের কোন ত্রুটী থাকবে না।

মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক রেহেনা আকতার দৈনিক ভোরের কাগজকে জানান, সনাতন ধর্মাবলম্বী সংগঠনের সাথে এ বিষয়ে একটি সভা করা হয়েছে। সরকার নির্দেশিত যে নির্দেশনাগুলো রয়েছে সেসম্পর্কে তাদের অবহিত করা হয়েছে এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের যে নির্দেশনাগুলো দেয়া হয়েছে, সেগুলো যথাযথভাবে মেনে চলতে বলা হয়েছে।

এসএম

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়