mosquito

মশা থেকে যেসব রোগ ছড়ায়

আগের সংবাদ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও লক্ষ্মীপুর আসনে উপনির্বাচন কি জরুরি

পরের সংবাদ

আদালতে গিয়ে পরিকল্পনা

ছিনতাইয়ের টাকায় বিয়ের বাজার, অত:পর কারাগারে

প্রকাশিত: অক্টোবর ১, ২০২৩ , ৫:১০ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১, ২০২৩ , ৫:১০ অপরাহ্ণ

এক ছিনতাইয়ের মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে এসে আরেক ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে ছিনতাইকারীর দল। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী অবসরপ্রাপ্ত এক সরকারি কর্মকর্তার ১৫ লাখ টাকা ছিনতাইও করে এই দলটি।

শুধু তাই নয় ছিনতাইয়ের টাকা দিয়ে এক ছিনতাইকারী তার বিয়ের বাজারও করেছে এর মধ্যে। তবে আপাতত: বিয়ের পরিবর্তে জায়গা হয়েছে শ্রীঘরে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ ( সিএমপি)’ র গোয়েন্দা টীম ( ডিবি)’ র হাতে শেষ পর্যন্ত ধরা পড়তে হলো তিন ছিনতাইকারীকে।

শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) ঢাকা ও চট্টগ্রামের বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে নগর গোয়েন্দা পুলিশের (বন্দর-পশ্চিম) উপ কমিশনার মো. আলী হোসেন জানিয়েছেন। গ্রেপ্তার হওয়া তিনজন হলো- নুরুল হক সজিব (৩৩), মো. মহিউদ্দিন (৪২) ও মো. রায়হান (২৮)।

সিএমপি’ র ডিবি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গ্রেপ্তার তিনজন ছিনতাইয়ের অন্য একটি মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে যায়। সেখানেই তারা আরেকটি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করেন। পরদিন প্রায় ১৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ওই ঘটনা ঘটান।

রবিবার (১ অক্টোবর) সকালে নগরীর মনসুরাবাদে ডিবি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উপ কমিশনার আলী হোসেন জানান, অবসরে যাওয়া এক সরকারি কর্মকর্তা গত ১৮ সেপ্টেম্বর তার স্ত্রীকে নিয়ে পেনশনের টাকা তুলতে নগরীর পাহাড়তলীতে ইসলামী ব্যাংকের একটি শাখায় যান।

পেনশনের ১৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা তুলে তিনি একটি বাজারের ব্যাগে নেন। ব্যাগভর্তি টাকা নিয়ে তিনি যখন ব্যাংক থেকে বের হন, তখন একটি সিএনজি অটোরিকশায় তিনজন এসে সেটা ছিনিয়ে নিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় তিনি পাহাড়তলী থানায় মামলা দায়ের করেন।

ঘটনাস্থল থেকে সংগ্রহ করা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ এবং গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ছিনতাইয়ে জড়িত তিনজনকে শনাক্ত করা হয়।

এরপর মহিউদ্দিনের অবস্থান শনাক্ত করে প্রথমে তাকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার তথ্যে সজীব ও রায়হানকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের কাছ থেকে ছিনতাই করা ১১ লাখ ৩০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার তিনজকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে গোয়েন্দা কর্মকর্তা আলী হোসেন বলেন, ‘প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা একটি সংঘবদ্ধ ছিনতাই চক্রের সদস্য বলে জানিয়েছে। এদের নেতা সজীব। ছিনতাইয়ের জন্য সিএনজি অটোরিকশাও সজীব নিয়ে এসেছিল। তাদেরকে আমরা এক বছর আগেও ছিনতাই করার অপরাধে গ্রেপ্তার করেছি।

সেই মামলায় গত ১৭ সেপ্টেম্বর আদালতে হাজিরা দিতে এসে আবার তারা ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে পরদিন এই ঘটনা ঘটিয়েছে।’

এরমধ্যে রায়হানের বিয়ে বৃহস্পতিবার (৫ অক্টোবর)। ছিনতাইয়ের টাকা দিয়ে সে বিয়ের কেনাকাটাও করেছে। এদের মধ্যে চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন থানায় অস্ত্র ও ছিনতাইয়ের অভিযোগে সজীবের বিরুদ্ধে আটটি মামলা, রায়হানের বিরুদ্ধে চারটি ও মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে ভোলায় ছয়টি মামলা আছে। বাকি টাকাগুলো উদ্ধার করতে আমাদের অভিযান অব্যহত আছে।’

এআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়