আলফাডাঙ্গায় কবিরত্ন এম এ হক সাহেবের ১৭তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

আগের সংবাদ
খালেদার স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন সন্ধ্যায়

খালেদার স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন সন্ধ্যায়

পরের সংবাদ

ইসি আলমগীর

ইসির অনুমতি ছাড়া ডিসি-এসপি বদলি নয়

প্রকাশিত: আগস্ট ১৪, ২০২৩ , ৫:১২ অপরাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ১৪, ২০২৩ , ৫:১২ অপরাহ্ণ
ইসির অনুমতি ছাড়া ডিসি-এসপি বদলি নয়

নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আলমগীর বলেছেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা দেয়ার পর ইসির পারমিশন (অনুমতি) ছাড়া পুলিশ সুপার (এসপি), ডিসি ও বিভাগীয় কমিশনারকে বদলি করা যাবে না।

সোমবার (১৪ আগস্ট) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর ডিসি, এসপি, পুলিশ কমিশনার, বিভাগীয় কমিশনার এবং তাদের অধীনে যারা আছে, ইসির অনুমতি ছাড়া কাউকে বদলি করা যাবে না। ইসি যদি কাউকে বদলি করতে বলে সেটাও করতে হবে। এটা আইনেই বলা আছে।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের কাজ সরকার যেই থাকুক, যেভাবেই থাকুক যথাসময়ে নির্বাচন করা। ভোট কবে হবে সেই সিদ্ধান্ত আগামী নভেম্বরে জানানো হবে। এর আগে বলা যাবে না।

ইসি আলমগীর বলেন, আমরা যখন শপথ নিয়েছি, বলেছি যে সংবিধান মেনে চলব। নির্বাচন কমিশনের কাজ কী তা সংবিধানে স্পষ্ট করে বলা আছে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচন, জাতীয় সংসদ নির্বাচন, ভোটার তালিকা প্রণয়ন, আসনের সীমানা নির্ধারণ এবং সংসদ যদি আইন করে কোনো দায়িত্ব দেয়।

জাতীয় নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার দায়িত্ব শুধু ইসির নয় এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা সরকার, ভোটার, প্রার্থী সকলের দায়িত্ব। আইনে যেটুকু বলা আছে ততটুকু ইসির দায়িত্ব।’

ইসি আলমগীর বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা যাতে না ঘটে, সেটা আমাদের বললে ব্যবস্থা নিই। এখন ঘরে ঘরে পুলিশ দেয়া কি সম্ভব? মিছিল তো হবে প্রতি গ্রামে, পুলিশ কি সব জায়গায় যেতে পারবে? এজন্য আমাদের আগে থেকে জানাতে হবে। আমরা তখন নিরাপত্তা দিতে বাধ্য।

বিএনপির নির্বাচনে আসার ব্যাপারে ইসির কোনো উদ্যোগ না নেয়ার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্বাচনে সব দল কখনো অংশ নেয় না। অতীতেও নেয়নি। আমাদের ৪৪টি দল আছে। সবাই তো অংশগ্রহণ করবে না। কেননা, ভোটে অংশ নিতে অনেক সক্ষমতার বিষয় আছে।

তিনি বলেন, আমরা সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের নব্বই দিনের মধ্যে সংসদ নির্বাচন করার শপথ নিয়েছি। আমাদের কাজ এইটুকুই যে, ভোটার তালিকা করব, দলের নিবন্ধন দেব আর যখন যে নির্বাচনের সময় আসবে যথাসময়ে সে নির্বাচনগুলো করব। এসময় তিনি নির্বাচনকালীন সরকারে নির্বাচন কমিশনের কাজ কি সেটা নিয়েও কথা বলেন।

মো. আলমগীর বলেন, সরকার কেমন হবে সেটা দেখা তো আমাদের বিষয় না। কী হবে না হবে সংবিধানে বলা আছে। আমাদের কী করতে হবে সেটাও সংবিধানে বলা আছে। কী ধরনের সরকার থাকবে সেটা রাজনৈতিক বিষয়। এ নিয়ে আমাদের কিছু বলা নেই।

এআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়