জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে এসএসসির ফল

জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে এসএসসির ফল

আগের সংবাদ

আলীকদমে জাগো ফাউন্ডেশনের প্রকল্প অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত

পরের সংবাদ

বাইডেন-মোদী বৈঠক

মানবাধিকার প্রসঙ্গ তুলবেন বাইডেন

প্রকাশিত: জুন ২২, ২০২৩ , ৪:০১ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২২, ২০২৩ , ৪:০১ অপরাহ্ণ

মানবাধিকার নিয়ে আমেরিকার আইনসভার ৭৫ জন সদস্য সরব হওয়ায় বিষয়টি অন্য মাত্রা পেয়েছে। এ নিয়ে বাইডেন প্রশাসন বিবৃতিও দিয়েছে।

নির্বিচারে হত্যা, সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব, সংখ্যালঘুদের উপরে অত্যাচারের ঘটনা উল্লেখ করে আমেরিকা বারবার অভিযোগ করেছে, ভারতে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। বিষয়টি ছায়া ফেলেছে নরেন্দ্র মোদীর প্রথম সরকারি আমেরিকা সফরেও। আমেরিকা প্রশাসনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, জো বাইডেন এবং মোদীর বৈঠকে ভারতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি তোলা হবে।

ইতিমধ্যেই আমেরিকান কংগ্রেসের ৭৫ জন সদস্য চিঠি দিয়ে দাবি করেছেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেন যেন মানবাধিকারের বিষয়টি মোদীর সঙ্গে বৈঠকে তোলেন। আমেরিকান কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে মোদীর ভাষণ বয়কটের কথা জানিয়েছেন আমেরিকার আইনসভার দুই সদস্য। মানবাধিকার নিয়ে আমেরিকার আইনসভার ৭৫ জন সদস্য সরব হওয়ায় বিষয়টি অন্য মাত্রা পেয়েছে। এ নিয়ে বাইডেন প্রশাসন বিবৃতিও দিয়েছে। হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সুলিভান বলেন, ‘‘আমেরিকা যখন দেখে সংবাদমাধ্যমের, ধর্মীয় বা অন্যান্য স্বাধীনতা খর্বের মুখে, তখন আমরা আমাদের মতামত প্রকাশ করি। সেই মতামত প্রকাশ করতে গিয়ে আমরা বক্তৃতা করি না। বৈঠকে প্রেসিডেন্ট বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর সামনে তুলবেন, কিন্তু তা নিয়ে উপদেশ দিতে যাবেন না।’’ তাঁর সংযোজন, ভারতের গণতন্ত্র ও রাজনীতির বিষয়টি নির্ধারণ করবেন ভারতীয়রাই। আমেরিকা নয়। যে কোনও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ভুলত্রুটি হয়, তা সংশোধন করে নেওয়া উচিত।

গত নয় বছরে পাঁচ বার আমেরিকা সফর করলেও মোদীর এই বারের সফরকে আনুষ্ঠানিক ভাবে সরকারি মর্যাদা দেওয়া হচ্ছে। মেনে চলা হচ্ছে যাবতীয় কূটনৈতিক প্রোটোকলও। স্বভাবতই, মোদীর এ বারের সফরের গুরুত্ব একেবারেই আলাদা। আগামিকাল বাইডেনের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। তার আগে আমেরিকার আইনসভার ৭৫ জন সদস্য (১৮ জন সেনেটর এবং ৫৭ জন হাউস অব রিপ্রেজ়েন্টেটিভসের সদস্য) চিঠি দিয়ে দাবি করেছেন, বাইডেন যেন মোদীর কাছে ভারতে মানবাধিকারের উদ্বেগজনক অবস্থা নিয়ে সরব হন।বাইডেনের উদ্দেশে লেখা ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘ভারত-আমেরিকার মজবুত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক দীর্ঘ দিনের। আমরা মনে করি, বন্ধুরাই পারে তাঁদের মতপার্থক্যের বিষয়গুলি নিয়ে সৎ এবং দ্বিধাহীন ভাবে আলোচনা করতে। তাই অন্য দ্বিপাক্ষিক বিষয়গুলির পাশাপাশি, মানবাধিকারের বিষয়টিও আপনি মোদীর সঙ্গে বৈঠকে উত্থাপন করুন’।

কোনও রকম রাখঢাক না করেই ওই ৭৫ জন সদস্য চিঠিতে বলেছেন, ‘ভারতে গণতান্ত্রিক পরিসর সঙ্কুচিত হচ্ছে। ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার উত্থান ঘটছে। নাগরিক সমাজ এবং সাংবাদিকদের লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং ইন্টারনেট ব্যবহারের উপর ক্রমবর্ধমান বিধিনিষেধ উদ্বেগজনক ভাবে লক্ষ করা যাচ্ছে। তাই আমেরিকার বিদেশনীতির মূল ভিত্তির উপর দাঁড়িয়ে আপনি (বাইডেন) বিষয়গুলি নিয়ে সরব হোন’।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়