ঋণ পরিশোধ করেও বৃদ্ধকে যেতে হলো জেলে

ঋণ পরিশোধ করেও বৃদ্ধকে যেতে হলো জেলে

আগের সংবাদ

একনজরে সিলেট সিটি নবনির্বাচিত কাউন্সিলররা

পরের সংবাদ

হাথুরুর ‘গুডবুকে’ সৌম্য-মোসাদ্দেক

প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২৩ , ১০:০৫ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২১, ২০২৩ , ১০:০৫ অপরাহ্ণ
হাথুরুর ‘গুডবুকে’ সৌম্য-মোসাদ্দেক

আফগানিস্তানের বিপক্ষে আগামী জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহ থেকে একটি করে ওয়ানডে ও টি- টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ দল। সেই সিরিজকে সামনে রেখে গতকাল শুরু হয় তিন দিনের অনুশীলন ক্যাম্প। জানা যায়, আফগানদের বিপক্ষে ঘোষিত স্কোয়াডের বাইরেও তিন ক্রিকেটার ডাক পেয়েছেন চলমান এই ক্যাম্পে। তারা হলেন সৌম্য সরকার, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত এবং শেখ মাহদি।

আরেকদিকে বুধবার প্রস্তুতি ক্যাম্পে ছিলেন না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিনি এই মুহূর্তে কানাডায় অবস্থান করছেন। আগামী ১ জুলাই তিনি বাংলাদেশ দলের সঙ্গে অনুশীলনে যোগ দেবেন।

সম্প্রতি আফগানিস্তানের বিপক্ষে এক ম্যাচের টেস্ট সিরিজে রেকর্ড গড়া জয় পেয়েছে টাইগাররা। তাই আগামী সিরিজগুলোতেও ভালো করতে মরিয়া হয়ে আছে চন্ডিকা হাথুরুসিংহের শিষ্যরা। আসন্ন ঈদের আগে বাংলাদেশ তিন দিনের প্রস্তুতি ক্যাম্প করছে। বুধবার (২১ জুন) শুরু হওয়া এই ক্যাম্প একদিনের বিরতি দিয়ে চলবে আগামী শনিবার পর্যন্ত। ইতোমধ্যেই আফগানদের বিপক্ষে স্কোয়াড ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। স্বাভাবিকভাবেই সেই স্কোয়াড নিয়েই অনুশীলন ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। তবে বিসিবির অন্যতম নির্বাচক হাবিুবুল বাশার সুমন বুধবার নিশ্চিত করেন সৌম্য, মোসাদ্দেক ও শেখ মাহদিকে অনুশীলনে ডাকা হয়েছে। তবে এই তিন ক্রিকেটার স্কোয়াডের অংশ হিসেবে বিবেচিত হবেন না জানিয়ে সুমন বলেন, ‘মূলত কোচের ইচ্ছায় এ তিনজনকে ডাকা হয়েছে। তারা শেরে বাংলায় দলের সঙ্গে অনুশীলন করবে। কারণ কোচ হাথুরুসিংহে তাদের খুঁটিয়ে দেখতে চেয়েছেন। হাথুরু চেয়েছেন বলেই তারা ওয়ানডে দলের সঙ্গে অনুশীলন করবেন।’ অনুশীলন করে ঈদের পর তারা বেঙ্গল টাইগার্সের অনুশীলনে যোগ দেবেন। আর মোসাদ্দেক ছাড়া সৌম্য ও শেখ মাহদি ইমার্জিং দলের হয়ে শ্রীলঙ্কার মাটিতে ইমার্জিং টুর্নামেন্ট খেলতে যাবেন বলেও জানান সুমন। মিরপুরে তিন দিনের অনুশীলনের সৌম্য, মোসাদ্দেক ও শেখ মাহদির সর্বশেষ অবস্থা খুঁটিয়ে দেখবেন হাথুরু।

সৌম্য সরকার ছন্দ ধরে রাখতে পারলে যে কোনো মুহূর্তেই বাংলাদেশ দলের ত্রাতা হয়ে ওঠার সক্ষমতা রাখেন। তার প্রতিভা কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশ আসন্ন এশিয়া কাপ এবং বিশ^কাপে দুর্দান্ত ভূমিকা রাখতে পারেন। তাই সৌম্য সরকারকে কাছ থেকে দেখে যাচাই করতে চান টাইগারদের প্রধান কোচ। আর মোসাদ্দেক ও শেখ মাহদিকে ডাকার কারণ ভিন্ন। দলে মেহেদি হাসান মিরাজ ছাড়া কোনো অফস্পিন অলরাউন্ডার নেই। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এই মুহূর্তে পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। তাই আসন্ন আফগান সিরিজে তাকে দেখা যাবে না। পরবর্তীতেও তাকে মাঠে পাওয়া যাবে কিনা তার প্রশ্নও থেকে যায়। টপঅর্ডার ব্যাটারদের মধ্যে নাজমুল হোসেন শান্তকে মাঝে মাঝে বল হাতে দেখা গেলেও বিশ^কাপের ময়দানে তিনি দলের ঝুঁকির কারণ হতে পারেন। তাই একজন প্রতিষ্ঠিত অফস্পিনার অলরাউন্ডার বাংলাদেশ দলের জন্য আবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই ক্যাটাগরির ক্রিকেটার হলেন নাসির হোসেন, মোসাদ্দেক ও শেখ মাহদি। নাসিরের পারফরম্যান্স ভালো হলেও তাতে ধারাবাহিকতার অভাব ভালোভাবেই দেখা যায়। তাই মোসাদ্দেক ও শেখ মাহদিকে খুঁটিয়ে দেখতে চান হেড কোচ। মিডলঅর্ডার কাম অফস্পিনার হিসেবে এ দুজনের কেউ কোচের মন জয় করতে পারলে বিশ^কাপে বিশেষ বিবেচনায় আসতেও পারেন।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ফিরতি ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে আঙুলের চোটে পড়া সাকিব আল হাসান খেলতে পারেননি আফগানদের বিপক্ষে খেলা সিরিজের একমাত্র টেস্টে। তবে টেস্ট শুরু হওয়ার আগেই দেশের মাটিতে পা রাখেন বিশ^সেরা এই অলরাউন্ডার। টেস্ট মাঠে গড়ানোর পর তিনি জিম ও বোলিং অনুশীলনও করেন। তাই সবার ধারণা ছিল গতকাল তাকে দলের সঙ্গে অনুশীলন ক্যাম্পে দেখা যাবে। তবে বুধবার জানা যায়, সাকিব বর্তমানে কানাডায় অবস্থান করছেন। তিনি গত ১৯ জুন দেশের মাটি ছেড়েছেন। বুধবার নিজের ফেসবুক পেইজে তিনি ছবি দিয়ে নিজের অবস্থান নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, সাকিব স্ত্রী-সন্তানসহ দেশেই ঈদ পালন করবেন। সেই লক্ষ্যে তিনি আগামী ২৬ জুন কানাডা থেকে সপরিবারে দেশে ফেরত আসবেন। পরিবারের সঙ্গে ঈদ পালন করে তিনি আগামী ১ জুলাই চট্টগ্রামে দলের সঙ্গে অনুশীলনে যোগ দেবেন।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে রেকর্ড ৫৪৬ রানে টেস্ট জয়ের পর বাংলাদেশের চোখ এখন সাদা বলের ক্রিকেটে। আগামী ৫ জুন চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে শুরু হবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে। সম্প্রতি শেষ হওয়া টেস্ট ম্যাচটিতে বাংলাদেশ খুব সহজেই জয় পেয়েছে। তবে আসন্ন ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খুব একটা সহজ হবে না বলে মনে করেন টাইগার শিবিরের অন্যতম পেসার তাসকিন আহমেদ। তিনি গত সোমবার গণমাধ্যমকে জানান, ‘আসন্ন সিরিজগুলো অবশ্যই চ্যালেঞ্জিং হবে। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে জেতা মোটেও সহজ হবে না। টেস্টের আগে থেকেই আল্লাহর রহমতে সবাই প্রস্তুতি নিচ্ছিল। সবমিলিয়ে এবারো সবার প্রস্তুতি ভালো থাকবে। আমরা ভালো কিছুর ব্যাপারে আশাবাদী। তবে নিশ্চিতভাবেই বলা যায় এটি সহজ হবে না।’

চলতি বছরে স্বপ্নের মতো ভালো সময় পার করছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। চলতি বছরে টাইগাররা ইংলিশদের বিপক্ষে একটি তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হারা বাদে খারাপ কোনো রেকর্ড নেই। প্রতিটি ব্যাটার থেকে শুরু করে সকল পেসাররাও আছেন দুর্দান্ত ফর্মে। তাই বাংলাদেশ দলকে নিয়ে তাসকিনের আশাটাও অনেক বড়। পরবর্তী সিরিজ নিয়ে তিনি বলেন, ‘শেষ ম্যাচটা আসলে অতীত হয়ে গেছে। পরের ম্যাচটা আবার শুরু হবে প্রথম বল থেকে। সাধারণত চট্টগ্রামে বেশ স্পোর্টিং ও ব্যাটিংবান্ধব উইকেট হয়ে থাকে। আল্লাহর রহমতে পেসাররা উন্নতি করছে। কিন্তু তবুও নতুন করে শুরু করতে হবে ওই ম্যাচটার জন্য নির্দিষ্ট করে।’

সব সিরিজ সফলতার সঙ্গে শেষ করে ধারাবাহিকভাবে এশিয়া কাপ ও বিশ^কাপের দিকে মনোযোগী হতে চান তাসকিন। তিনি বলেন, ‘নিজেদের সেরাটা দিয়ে ফলাফল বের করে আনতে হবে। আমরা সবাই আশাবাদী, এভাবে উন্নতির ধারাবাহিকতা থাকলে সামনে বিশ^কাপ এবং এশিয়া কাপ আছে। সবকিছু পর্যায়ক্রমে তৈরি হবে। ভালো কিছু হবে ইনশাল্লাহ।’

চলতি বছরে বাংলাদেশ দল মাঠে নামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে। সেই সিরিজের প্রথম দুুই ম্যাচে পরাজিত হয় তামিমবাহিনী। এরপরের ম্যাচে তারা দাপট দেখিয়ে হোয়াইটওয়াশ থেকে নিজেদের রক্ষা করে। এর পরপরই সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে ইংলিশদের টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাওয়াশ (হোয়াইটওয়াশ) করে বাংলাদেশ। এরপর ঘরের মাঠে আইরিশদের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে, বিদেশের মাটিতে আইরিশদের ওয়ানডে সিরিজে হারায় হাথুরুর ছাত্ররা। তাই আসন্ন সব ম্যাচে তামিম-শান্ত-সাকিবরা ভালো করবে এটাই সবার প্রত্যাশা।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়