অনিয়মের সংবাদ প্রকাশ করায় চাঁদাবাজির অভিযোগ

আগের সংবাদ

প্রথম আলোর নিবন্ধন বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন

পরের সংবাদ

বেগমগঞ্জে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পাঠদান

প্রকাশিত: এপ্রিল ৬, ২০২৩ , ২:১৪ অপরাহ্ণ আপডেট: এপ্রিল ৬, ২০২৩ , ২:১৪ অপরাহ্ণ

নোয়াখালী বেগমগঞ্জ উপজেলার উত্তর পশ্চিম কুতুবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। দীর্ঘদিন ২৯ বছর ধরে ভবনটি সংস্কার বা নতুন ভবন নির্মাণ না করায় শিক্ষার্থীদের ঝুঁকির মধ্যেই পাঠদান করাচ্ছেন শিক্ষকরা। বিদ্যালয় ভবনটি যে কোন সময় ভেঙে পড়ে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

স্থানীয়ভাবে জানা যায়, এলাকায় শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে ১৯৭৬ সালে উত্তর পশ্চিম কুতুবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০১৩ সালে বিদ্যালয়টি সরকারিকরণ করা হয়। বর্তমানে যে ভবনটিতে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করানো হচ্ছে সেটি ১৯৯৪ সালে নির্মিত। দীর্ঘদিন ২৯ বছরে ভবনটি সংস্কার না করায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ইটের কনা ও সুরকি খসে পড়ে সরু হয়ে গেছে পিলারগুলো, শেওলা জমেছে ভবন জুড়ে। ক্লাস চলাকালে প্রায় সময় উপরের ছাদ থেকে ইট সুরকি খসে পড়ে। এতে অনেকে আহতও হয়েছেন। ভয়ে অভিভাবকরা সন্তানদের এই বিদ্যালয়ে ভর্তি করাতে চান না। যে কোন সময় বিদ্যালয় ভবনটি ভেঙ্গে পড়ে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সোলাইমান জানান, ভবনটি যে অবস্থায় আছে যে কোন সময় ভেঙ্গে পড়তে পারে। আমরা আতঙ্কের মধ্যে আছি। কখন দুর্ঘটনা ঘটে যায় বলা যায় না। আমরা বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। বিদ্যালয়টি এই মুহূর্তে পরিত্যাক্ত ঘোষণা করে নতুন একটি ভবন করা জরুরি হয়ে পড়েছে। আমরা উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

কুতুবপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মেম্বার হাফেজ জাফর উল্যাহ স্বপন জানান, শিক্ষক-শিক্ষার্থীর পাশাপাশি অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠিয়ে চিন্তায় থাকেন। আমরা চাই দ্রত এখানে একটি নতুন ভবন হোক। আমাদের পক্ষ থেকে সব রকমের সহযোগিতা করা হবে।

বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়াসির আরাফাত ও শিক্ষা অফিসার আবদুল হান্নান পটোয়ারী জানান, বিদ্যালয়টি সম্পর্কে খোঁজ খবর নিয়ে দ্রত প্রদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

নোয়াখালী-৩ আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরণ বলেন, আমরা ইতিমধ্যে অনেকগুলো প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তালিকা করেছি। সেই তালিকায় যদি বিদ্যালয়টি থাকে তাহলে দ্রতই নতুন ভবন হবে। আর তালিকায় নাম না থাকলে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কেএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়