শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতি এগিয়ে যাবে

আগের সংবাদ

বিপিএলের ট্রফি উন্মোচন

পরের সংবাদ

শিবালয়ে রক্ষা পেল বিপুল পরিমাণ এমওপি সার

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৫, ২০২৩ , ৫:২৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ৫, ২০২৩ , ৫:২৯ অপরাহ্ণ

মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার যমুনা নদীতে (এমভি ইবাদত) জাহাজ ডুবির ঘটনায় অল্পের জন্য রক্ষা পেল বিপুল পরিমাণ এমওপি সার। জাহাজটি সার বোঝাই করে বাঘাবাড়ির উদ্দেশ্যে মংলাবন্দর থেকে ছেড়ে এসেছিল।

বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) সকালের দিকে উপজেলার দাসকান্দি ঝড়িয়ারবাগ এলাকার যমুনা নদীরকুলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জাহাজের স্টাফদের দাবি, তাদের সচেতনার কারণে বড় দুর্ঘটনা ঘটেনি। কারণ যেখানে জাহাজ নোঙর করা ছিল সেখানে পানির পরিমাণ ৩৫-৪০ ফুট।

স্থানীয়রা জানান, নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে পানি কম থাকার কারণে ঝড়িয়ারবাগ এলাকায় জাহাজ নোঙর করে ছোট জলযানে তারা পণ্য বিভিন্ন জায়গায় সরবরাহ করে থাকেন। এ জাহাজে ধারণ ক্ষমতার অধিক মাল থাকার কারণে কিংবা মেরামতের অভাবে এ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

জাহাজের নাবিক মো. হাসান জানান, আমাদের জাহাজে ৬০০ টন এমওপি সার ছিল। টোন পাইপের গোড়া দিয়ে পানি উঠার কারণে সকাল সাতটায় দুর্ঘটনা ঘটতে যাচ্ছিল। আমরা সতর্কতার সাথে মেশিন দিয়ে পানি অপসারণ করেছি। আমাদের আপ্রাণ চেষ্টার ফলে সামান্য পরিমান সারও নষ্ট হয়নি।

জাহাজের সুকানি মো. জসিম জানান, আমাদের জাহাজে ৬৫০ টন সার ছিল। টোন পাইপ দিয়ে পানি চুইয়ে সকাল সাড়ে আটটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। টোন পাইপের গোড়া সামান্য ঢিলা থাকার কারণে জাহাজে পানি ঢুকেছে। আমরা ভেবেছিলাম গন্তব্যস্থলে পৌঁছে টোন পাইপ মেরামত করবো। কিন্তু তার আগেই দুর্ঘটনা ঘটে গেছে। তবে, কোন সার নষ্ট হয়নি। আমরা অল্প সময়ের মধ্যেই পানি অপসারণ করতে সক্ষম হয়েছি।

বিআইডব্লিউটিএ এর আরিচা নৌ সংরক্ষণ পরিচালক বিভাগের যুগ্ম পরিচালক এসএম আজগর আলী দৈনিক ভোরের কাগজকে জানান, আমি স্টেশনের বাহিরে আছি। এ বিষয়ে আমি বিস্তারিত কিছু জানি না। ওই দুর্ঘটনার স্থানে আমাদের দায়িত্বপ্রাপ্ত যিনি আছেন তার সাথে কথা বলেন।

কেএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়