ডেঙ্গুতে আরও ১৯৪ রোগী হাসপাতালে

আগের সংবাদ

দ্বিতীয় সন্তানের মা হলেন নেহা ধুপিয়া

পরের সংবাদ

বাল্য বিয়ে ঠেকাতে এনআইডি থেকে বয়স জানার সুপারিশ

প্রকাশিত: অক্টোবর ৩, ২০২১ , ৯:৩১ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ৩, ২০২১ , ৯:৩১ অপরাহ্ণ

যৌন নিপীড়ন বন্ধে কঠোর অবস্থান নেবার পদক্ষেপ হিসেবে যৌন নিপীড়নকারী ছাত্রদের চিহ্নিত করে তাদের ক্লাসে না ঢুকতে দেবার নির্দেশ দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি।

রবিবার (৩ অক্টোবর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে কমিটির সভাপতি শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে সদস্য ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন, পীর ফজলুর রহমান, নূর মোহাম্মদ এবং বেগম রুমানা আলী অংশ নেন। বিশেষভাবে আমন্ত্রণে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আ,স,ম ফিরোজ, মোছা. মাহাবুব আরা গিনি, মেহের আফরোজ, মো. আব্দুস শহীদ, আ.ফ.ম রুহুল হক, মো. হাবিবে মিল্লাত, উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম, মোছা. শামীমা আক্তার খানম, শামীম হায়দার পাটোয়ারী এবং আরমা দত্ত।

বৈঠকে যৌন হয়রানি বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। সেক্ষেত্রে কারো বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রমাণিত হলে ফৌজদারি আইনের আশ্রয় নিতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি অভিযোগকারী যদি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে প্রমাণিত হয় তাহলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে উপযুক্ত শাস্তি দেবার জন্য সুপারিশ করেছে হাইকোর্ট।

বাল্যবিবাহ ও যৌন হয়রানি বন্ধে হাইকোর্টের নীতিমালায় ১১ ধারায় শাস্তির ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত ব্যক্তিকে (ব্যতিরেকে) সাময়িকভাবে বরখাস্ত করতে পারেন এবং ছাত্রদের ক্ষেত্রে অভিযোগ কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী তাদেরকে শ্রেণি কক্ষে আশা থেকে বিরত রাখতে পারেন বা আসলে বের করে দিতে পারেন। আর অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তা অপরাধ হিসেবে গণ্য করবে এবং সকল সরকারি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং কর্মক্ষেত্রের শৃঙ্খলা বিধি অনুসারে ৩০ দিনের মধ্যে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে এবং যদি উক্ত অভিযোগের যে কোন ধারা অনুযায়ী অপরাধ হিসেবে গণ্য হয় তাহলে প্রয়োজনীয় ফৌজদারি আইনের আশ্রয় নিতে হবে যা পরবর্তীতে সংশ্লিষ্ট আদালতে বিচার করবে।

বৈঠকে উপস্থিতি কমিটি সদস্য আ স ম ফিরোজ বলেন, বাল্যবিয়ে বন্ধে তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে। এজন্য জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) সার্ভারের তথ্যকে ব্যবহার করে বিয়ের কাজী নিজের তথ্য ও বিয়ে প্রার্থীর তথ্য ইনপুট দিয়ে বিয়ের ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট নেবার সিস্টেম চালু করতে হবে।

বৈঠকে বলা হয়েছে- মাদক নিয়ন্ত্রণ, নারীর প্রতি সহিংসতা ও বাল্য বিবাহ ও ইভটিজিং বন্ধে প্রতিটি থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার তত্ত্বাবধানে একজন নারী কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিতে হবে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সকল সরকারি সংস্থা-দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের, বিশ্ববিদ্যালয়- কলেজের ছাত্র শিক্ষক কর্মচারীদের নিয়মিত ডোপ টেস্টের আওতায় আনতে হবে। মাদকের বিররুদ্ধে সচেতনতা কার্যক্রম গুলো আরো বেশি দৃশ্যমান করার সুপারিশ করা হয়েছে। এছাড়া ইভটিজিং বন্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া, স্কুল কলেজে অধ্যায়নরত অবস্থায় এবং ছাত্র-ছাত্রীদের চলাচলের পথে বখাটে ছেলেরা যাতে ফুটপাত বন্ধ করে মেয়েদের হয়রানি না করতে পারে সে বিষয়ে পুলিশের কঠোর নজরদারি রাখার কথাও বলেছে কমিটি।

রি-এনআরআর/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়