শ্বশুরের দেয়া আগুনে নিভে গেল পুত্রবধূর জীবন প্রদীপ 

আগের সংবাদ

প্রকল্প বাস্তবায়নে সেনাবাহিনী ও কুবির চুক্তি

পরের সংবাদ

সু কির বিরুদ্ধে ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের দাবি মিয়ানমার সেনাদের

প্রকাশিত: মার্চ ১১, ২০২১ , ৫:২৫ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ১১, ২০২১ , ১০:৪৬ অপরাহ্ণ

মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানে উৎখাত হওয়া গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত নেত্রী অং সান সু কিকে ফাঁসাতে এবার তার বিরুদ্ধে ডলার ও সোনা ঘুষ হিসেবে গ্রহণের অভিযোগ এনেছে দেশটির সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর দাবি, তার আত্মসাৎকৃত এই অর্থের পরিমাণ ১০ কোটি ২১ লাখ টাকারও বেশি। ১ ফেব্রুয়ারি সেনা অভ্যুত্থানের পর সু কির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলোর মধ্যে এটি সবচেয়ে মারাত্মক। অভিযোগ আনা হলেও এর সপক্ষে কোনও প্রমাণ হাজির করা হয়নি সেনা তরফে। খবর বিবিসির।

বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) সেনাবহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ঝাউ মিন তুন সংবাদ সম্মেললে দাবি করেন, ইয়াঙ্গুনের সাবেক একজন মুখ্যমন্ত্রী অং সান সু চিকে ছয় লাখ ডলার ( প্রায় ৫ কোটি টাকা)  নগদ অর্থ এবং ১১ কেজি স্বর্ণ ঘুষ দিয়েছিলেন। স্বর্ণের আনুমানিক দাম সাড়ে চার লাখ পাউন্ড (প্রায় ৫ কোটি ২১ লাখ  টাকা) । কিন্তু এর বাইরে বিস্তারিত কিছু জানাননি  এই মুখপাত্র।

সু কিসহ উৎখাত হওয়া প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট ও আগের মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্যের বিরুদ্ধেও এদিন এই দুর্নীতির অভিযোগ আনেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ঝাউ মিন তুন।

তিনি সংবাদ সম্মেলনে সু কির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি বা এনএলডির বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বলেছেন, যেসব প্রতিবাদকারী নিহত হচ্ছে তাদের মৃত্যুর জন্য তারাই দায়ী। কারণ দলটি তাদেরকে রাস্তায় নেমে আসার জন্য উস্কানি দিচ্ছে।

গত পাঁচ সপ্তাহ ধরে সু চিকে অজ্ঞাত স্থানে আটক রাখা হয়েছে। তারা বিরুদ্ধে আতঙ্ক ছড়ানো, অবৈধ রেডিও সরঞ্জাম ও করোনা বিধিনিষেধ ভঙ্গের অভিযোগ এনেছে সামরিক সরকার।

সু চির ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি (এনএলডি) ২০২০ সালের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিশাল ব্যবধানে জয় পেয়েছিল। কিন্তু ১ ফেব্রুয়ারি সেনাবাহিনী ওই নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ তুলে ক্ষমতা দখল করে। স্বাধীন আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকরা সেনাবাহিনীর এই দাবি প্রত্যাখ্যান করে আসছেন। তারা বলছেন, নির্বাচনে কোনও অনিয়ম হয়নি। ১ ফেব্রুয়ারির এই সেনা অভ্যুত্থানের পর মিয়ানমারে সেনা শাসন বিরোধী বিক্ষোভ চলছে। বৃহস্পতিবার বিক্ষোভে নিরাপত্তাবাহিনীর গুলিতে আরও সাত জনের মৃত্যু হয়েছে। এতে এ পর্যন্ত বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৬০ ছাড়িয়েছে।

আরআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়