জনকের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন বিজয়ের পরিপূর্ণতা অর্জন

আগের সংবাদ

বিচ্ছেদ গুজব নিয়ে মুখ খুললেন মাহি-অপু

পরের সংবাদ

চটপটি বিক্রেতার ‘অশ্লীলকাণ্ডে’ দিশেহারা মেয়ে-মা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৯, ২০২০ , ৪:৩৪ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ৯, ২০২০ , ৮:১৭ অপরাহ্ণ

রাস্তার চটপটি বিক্রেতার প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ার চরম খেসারত দিতে হচ্ছে দশম শ্রেণির ছাত্রীসহ তার মাকে। প্রেমের প্রস্তাব, রাস্তায় যৌন হয়রানি করেই শুধু ক্ষান্ত হয়নি সেই বখাটে, মেয়ের সঙ্গে মাকেও যৌনকর্মী অপবাদ দিয়ে প্রকাশ্যে পোস্টার সাঁটিয়েছে এলাকায়। এতে চরম লজ্জা আর অপমানে বিদ্যালয়ে যাওয়া ছেড়ে দিয়েছে ওই ছাত্রী, আর তার মা নিয়েছেন পুলিশের আশ্রয়।

ঘটনাটি ঘটেছে হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার গ্যানিংগঞ্জ বাজার এলাকায়। ছাত্রীর মা ক্ষুব্ধ হয়ে বুধবার (৮ জানুয়ারি) রাতেই ছাত্রী বানিয়াচং থানায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ বখাটে চটপটি বিক্রেতার ভাই সুমন মিয়াকে আটক করেছে।

ঘটনার শিকার ছাত্রী বানিয়াচং উপজেলার আমবাগান উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণিতে পড়ছে। তার বাড়ি যাত্রাপাশা কান্দিপাড়া এলাকায়।

থানায় দেয়া অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ওই ছাত্রী গ্যানিংগঞ্জ বাজারের ওপর দিয়ে বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া করার সুযোগে বাজারের চটপটি বিক্রেতা জাহেদ প্রায়ই তাকে উত্যক্ত করতো। এক পর্যায়ে সে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে বসে। তবে ছাত্রীটি প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করার পর ঘটনাটি তার মাকে গিয়ে জানায়।

এরপরেও চটপটি বিক্রেতার হয়রানি বন্ধ না হওয়ায় গেল বছরের ৫ আগস্ট বখাটের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন ছাত্রীর মা। এতে বেপরোয়া হয়ে ওই ছাত্রীকে আরো বেশি উত্ত্যক্ত করা শুরু করে বখাটে জাহেদ। এক পর্যায়ে ছাত্রীর লেখাপড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। নিরূপায় হয়ে নিজ বাড়ি ছেড়ে কিছুদিন আগে তার মা পাড়াগাঁও এলাকায় ভাড়া বাসায় ওঠেন।

এদিকে, ছাত্রী এলাকা পরিবর্তন করায় রাস্তায় উত্ত্যক্ত করতে না পারায় চটপটি বিক্রেতা ভয়ঙ্কর কাণ্ড করে বসে। ছাত্রীটির বড় আকারের একটি ছবি দিয়ে অশ্লীল পোস্টার ছাপিয়ে গত মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) রাতে গ্যানিংগঞ্জ বাজার ও যাত্রপাশা মহল্লার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সাঁটিয়ে দেয় বখাটে জাহেদ ও তার সহযোগিরা। পোস্টারে মেয়ে ও মায়ের মোবাইলফোন নাম্বার দিয়ে লেখা হয়- এখানে দেহব্যবসা করা হয়।

বিষয়টি জানার পর আমবাগান উচ্চ বিদ্যালয়ের গভর্নিং বডির সভাপতি ইকবাল হোসেন খান পুলিশকে অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ বুধবার (৮ জানুয়ারি) সন্ধার পর জাহেদের ভাইকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

জানতে চাইলে আমবাগান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিপুল ভূষণ রায় জানান, এ ব্যাপারে লিখিতভাবে ইউএনওকে জানানো হয়েছে। বখাটের শাস্তির দাবিতে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আন্দোলনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রঞ্জন কুমার সামন্ত জানান, ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ইতোমধ্যে একজনকে আটক করা হয়েছে। মূল হোতা জাহেদকে আটক করতে অভিযান চলছে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়