পুঠিয়ায় নিম্নমানের ধান কিনে বিপাকে খাদ্য কর্মকর্তা

আগের সংবাদ

চার মেয়র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা আজ

পরের সংবাদ

ফিরে দেখা ২০১৯

তিন বর্বরতায় রক্তক্ষরণ!

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯ , ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯ , ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ

নানান ঘটনা ও অঘটনের বছর ছিল ২০১৯। ধর্ষণ, ভয়াবহ আগুন, ক্যাসিনো ও দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযান, পর্দা-বালিশ কেলেঙ্কারি, পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের লাগামহীন দাম বাড়ায় বছরজুড়েই আন্দোলিত হয়েছে দেশ। তবে ফেনীর নুসরাত, বরগুনার রিফাত শরীফ ও বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যাকাণ্ডে যে বর্বরতার নজির সৃষ্টি হয়েছে- তা সব মানুষের হৃদয়ে ঘটিয়েছে তীব্র রক্তক্ষরণ। ২০১৯ সালটি যে শুধুই একটি অন্ধকারাচ্ছন্ন বছর ছিল তা নয়; এ বছর বাঙালির জীবনে যুক্ত হয়েছে অনেক আনন্দের বিষয়ও। বহু যুগান্তকারী ঘটনার কারণে কোটি মানুষের স্মৃতিতে বিদায়ী বছরটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

তিন হত্যাকাণ্ডে তোলপাড় : ঘটনাবহুল ২০১৯-এ বছরজুড়ে আলোচনার শীর্ষে ছিল তিন হত্যাকাণ্ড। ৬ এপ্রিল নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাদে ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। ১০ এপ্রিল ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় নুসরাত। ২৬ জুন রিফাত শরীফকে বরগুনার রাস্তায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সারাদেশে আলোচনার সৃষ্টি হয়। আর ৬ অক্টোবর জামায়াত-শিবিরের সদস্য সন্দেহে ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী পিটিয়ে হত্যা করে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে। ৭ অক্টোবর ভোরে আবরারের মরদেহ উদ্ধার করা হয় বুয়েটের শেরে বাংলা হল থেকে। এ ছাড়া বছরজুড়েই ছিল ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা। যা দেশবাসীকে স্তম্ভিত করেছে।

আশা জাগিয়েছিল শুদ্ধি অভিযান : বছরের শুরুতে মন্ত্রিসভায় বড় ধরনের পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে চমক সৃষ্টি করেছিল আওয়ামী লীগ সরকার। সেপ্টেম্বর মাসে শুরু হয় দলের অপকর্মকারী, ক্যাসিনোবাজ, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান। যা বাংলাদেশের রাজনীতির সাম্প্রতিক ইতিহাসে সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা। সরকারের পক্ষ থেকে এই অভিযান অব্যাহত রাখার কথা বলা হলেও বছর শেষে তা কথার কথাতেই পরিণত হয়েছে। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে নেতৃত্বে অনেকটা ক্লিন ইমেজের নেতাদের নিয়ে আশায় মানুষের প্রত্যাশা বাড়িয়ে দিয়েছিল। এ ছাড়া ছাত্রলীগের নেতাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতি ও বিভিন্ন দন্দ্বের ঘটনায় রাজনীতি ছিল উত্তপ্ত। ছাত্রলীগের প্রায় সাত দশকের ইতিহাসে শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে এ বছরই প্রথম সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে এক সঙ্গে পদ হারাতে হয়। এ ছাড়া শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের সম্মেলনের পর কমিটিতেই আসে পরিবর্তন।

অর্থনীতি ছিল নেতিবাচক ধারায় : ২০১৯-এর অর্থনীতি ছিল নানা নেতিবাচকতায় ঘেরা। লাগামহীন পেঁয়াজের দাম, নিত্যপণ্যের দরে অস্থিরতা, ব্যাংকিং খাতে নিয়ন্ত্রণহীনতা, বিনিয়োগ ও রপ্তানি আয়ে মন্দা আর পুঁজিবাজার নিয়ে ছিল উদ্বেগ। তবে এর মাঝেই মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপির প্রবৃদ্ধি সোয়া আট ভাগে পৌঁছুছে, বেড়েছে মাথাপিছু আয়ও।
বিদেশে নারী কর্মী নির্যাতনের চিত্র ছিল ভয়াবহ : বিদেশে নারী কর্মীদের নির্যাতনের বিষয়টিও ছিল বছরের আলোচিত ইস্যু। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নানাভাবে শারীরিক নির্যাতন, থাকা ও খাওয়া সমস্যা, বাচ্চা রেখের যাওয়াসহ নানা কারণে সৌদি আরব থেকে দেশে ফেরি আসতে বাধ্য হয়েছেন ৮ হাজার ৫০৭ জন। দেশে আসার অপেক্ষায় সৌদিতে বাংলাদেশের সেভহোমে রয়েছে ১৪৬ জন। তবে সৌদি থেকে ‘নির্যাতিত’ হয়ে একের পর এক নারী কর্মীর দেশে ফেরার মধ্যে গত ২৭ নভেম্বর রিয়াদে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং সৌদি শ্রম ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মধ্যে যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বেশ কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেয়া হয়। এমন কি নীতিমালায়ও পরিবর্তনেরও উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

মাথাব্যথা বাড়াচ্ছে রোহিঙ্গা সংকট : মিয়ানমার থেকে প্রাণভয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা নাগরিকদের প্রত্যাবাসনের বিষয়টি এ বছরও সুরাহা হলো না। রোহিঙ্গা শিবিরে লাখো রোহিঙ্গাকে কক্সবাজারে সংগঠিত সমাবেশ মিছিল, মাদক, অস্ত্র ব্যবসাসহ হত্যা ও ধর্ষণের মতো ঘটনা বাড়ায় এ নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছেই। রোহিঙ্গাদের উস্কানি দেয়ার অভিযোগে সেখানে কর্মরত দেশি-বিদেশি ৪৭টি বেসরকারি সংস্থার কার্যক্রম এ বছর নিষিদ্ধ করে সরকার। তবে বছরের শেষের দিকে রোহিঙ্গা গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে গাম্বিয়ার মামলায় সমাধানের আলো খুঁজছে বাংলাদেশ। বছর শেষে শুনানি হলেও আসছে নতুন বছরে এ ক্ষেত্রে প্রত্যাশিত রায় পেলে বাংলাদেশের জন্য তা সহায়ক হবে।

রাজাকারের তালিকা নিয়ে বিতর্ক : ১৫ ডিসেম্বর একাত্তরের রাজাকার, আলবদর, আলশামস ও স্বাধীনতাবিরোধী ১০ হাজার ৭৮৯ জনের নামের তালিকা প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। কিন্তু তালিকায় রাজশাহী, বরগুনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও বগুড়ায় কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতার নাম আসে। যারা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে পরিচিত। এসেছে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার নামও। ফলে প্রকাশিত তালিকা নিয়ে দেশজুড়ে নিন্দা ও ক্ষোভের ঝড় উঠে। অনেকে এই তালিকা সংশোধনের দাবি জানান। এই তালিকা প্রকাশের তিন দিনের মাথায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তালিকা যাচাই করে সংশোধনের জন্য আগামী ২৬ মার্চ পর্যন্ত তা স্থগিত করা হয়।

আগুনে প্রাণহানির বছর : ২০১৯ সালে বড় ধরনের বেশ কয়েকটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে হাজার হাজার মানুষ হতাহতের পাশাপাশি ঘরবাড়ি ও সম্পদ হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছেন। জনমনে এসব ঘটনা এখনো দাগ কেটে রয়েছে। উল্লেখযোগ্য অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাগুলো হলো- চুড়িহাট্টা, বনানীর এফ আর টাওয়ার, কেরানীগঞ্জে প্লাস্টিক কারখানা এবং গাজীপুরের ফ্যান কারখানায় অগ্নিকাণ্ড। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে বিভিন্ন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দগ্ধ হয়ে মারা গেছে ২ হাজার ১৩৮ জন। আহত হয়েছে ১৪ হাজার ৯৩২ জন। অথচ ২০০৯-২০১৮ সাল পর্যন্ত ১০ বছরে সারাদেশে আগুনের ঘটনায় মারা গেছে মোট এক হাজার ৪৯০ জন।

ডেঙ্গুর বিস্তার : বছরের শুরুতে কিছুটা ঝিম মেরে থাকলেও জুন মাস থেকে একচেটিয়া ‘দাপট’ দেখিয়েছে এডিস মশা। এডিস মশাকে বাগে আনতে ঢাকাসহ দেশের ১১টি সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষকে ঘাম ঝরাতে হয়েছে। এ ঘটনার মধ্যদিয়ে মশার ওষুধ কেনার অর্থ নয়ছয়ের বিষয়টিও সামনে আসে। সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও মন্ত্রণালয় এবং জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রীতিমতো এডিসের বিরুদ্ধে ‘যুদ্ধ’-ই ঘোষণা করে সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। পরিস্থিতি এতটাই ব্যাপকতার দিকে যায় যে, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা অতীতের যে কোনো রেকর্ড ছাড়ায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য ও অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের এক গবেষণায় দেখা গেছে, জুলাই মাসের মাঝামাঝি থেকে ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত ডেঙ্গুর কারণে সাড়ে ৪০০ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

বালিশ, পর্দা ও মেডিকেল বইকাণ্ড : বছরের মাঝামাঝি সময়ে দেশের সংবাদ মাধ্যমগুলোতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্মীদের আবাসন প্রকল্পের খরচ আর ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পর্দা কেনাকাটার ব্যয় দেখে অনেকেরই চোখ কপালে উঠে যায়। বিদ্যুৎ কেন্দ্রের গ্রিনসিটি আবাসন প্রকল্পের ১৬ ও ২০ তলা ভবনে প্রায় ৬ হাজার টাকার একটি বালিশ ভবনে ওঠাতে এক হাজার টাকার মতো খরচ দেখানো হয়। বালিশ নিয়ে তেলেসমাতি কাণ্ডের ঘোর না কাটতেই চোখে পড়ে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একটি পর্দার দাম। যেখানে হাসপাতালের আইসিইউয়ের রোগীকে আড়াল করে রাখার এক সেট পর্দা কেনা বাবদ খরচ দেখানো হয় ৩৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এরমধ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সরকারি মেডিকেল কলেজগুলোর বই কেনার ক্ষেত্রে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। এ অভিযোগে ৫ হাজার ৫০০ টাকার বই ৮৫ হাজার ৫০০ টাকায় কেনা হয়েছে বলে দাবি করা হয়।

রেল দুর্ঘটনা : ২০১৯ সালে বেশ কয়েকটি রেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। ১২ নভেম্বর রাত পৌনে ৩টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মন্দভাগ রেলওয়ে স্টেশনের ক্রসিংয়ে উদয়ন এক্সপ্রেস ও তূর্ণা নিশীথার মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে ১৬ জন নিহত এবং শতাধিক যাত্রী আহত হয়। এর আগে ২৩ জুন বরমচাল রেলক্রসিং এলাকায় সিলেট থেকে ঢাকাগামী উপবন এক্সপ্রেসের চারটি বগি লাইনচ্যুত হলে ছয়জন যাত্রী নিহত হয়।

আলোচিত ও নিষিদ্ধ সাকিব : ২০১৯ সালে ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ছিলেন ফর্মের তুঙ্গে। খেলেছেন ওয়ানডে বিশ্বকাপ। তবে প্রাপ্তির বিষয়টি ছাপিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) থেকে সাকিব নিষিদ্ধের খবর নিয়ে শুধু বাংলাদেশ নয়; বিশ্ব গণমাধ্যম ছিল বেশ সরব। অক্টোবরে সাকিবকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করে আইসিসি। দুই বছরের মধ্যে এক বছর পুরোপুরি নিষিদ্ধ, আর বাকি এক বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা অর্থাৎ খেলতে পারবেন কিন্তু আবারও অপরাধ করলে শাস্তি পেতে হবে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, জুয়াড়িদের প্রস্তাব পাওয়ার কথা তিনি আইসিসিকে জানাননি। এই দোষেই দুই বছরের নিষেধাজ্ঞার খড়গ নেমে আসে তার ঘাড়ে।

বিশ্বের ক্ষমতাধর ১০০ নারীর তালিকায় ২৯তম শেখ হাসিনা : বিশ্বের ক্ষমতাধর ১০০ নারীর তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম। ১৩ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রভাবশালী সাময়িকী ফোর্বস প্রকাশিত ওই তালিকায় ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন শেখ হাসিনা। ব্যক্তিগত ক্যারিয়ার, অর্থনীতি ও রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তারের ক্ষমতা, গণমাধ্যমে পারফরম্যান্স বিবেচনা করে এই তালিকা প্রকাশ করা হয়।

ফিফার রেফারি নির্বাচিত হলেন দুই নারী : বাংলাদেশের প্রথম নারী হিসেবে ফিফার রেফারি হিসেবে নির্বাচিত হন সাবেক দুই নারী ফুটবলার জয়া চাকমা ও সালমা ইসলাম মনি। ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ফিফার তালিকাভুক্ত হবেন তারা। ২৪ আগস্ট বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানান।

তৃতীয় লিঙ্গের জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত : দেশে প্রথমবারের মতো তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া সম্প্রদায়ের) এক জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হন। ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে ১৬ অক্টোবর নির্বাচিত হন সাদিয়া আখতার পিংকী।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়